ডিম হচ্ছে আমাদের প্রতিনিয়ত ব্যবহার করা সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবারগুলোর একটি। শুধুমাত্র পুষ্টির দিক থেকে নয় ব্যবহারের বিভিন্ন প্রকার দিক থেকেও ডিমের রয়েছে বিভিন্ন ধরনের বৈচিত্র এবং তারই মাঝে সবচেয়ে সহজ একটি প্রক্রিয়া হল ডিম সিদ্ধ করা।

যখন আপনার হাতে সময় কম থাকে বা আপনি বেশি ঝামেলায় পড়তে চান না তখন খুবই অল্প সময়ের মাঝে একটি ভালো ডিম সিদ্ধ করে ফেললে সেটা সহজেই যেকোন কিছুর সাথে খেয়ে ফেলা যায়। কিন্তু ডিম সেদ্ধ করার ব্যাপারে ছোট কিছু বিষয় মাথায় রাখা উচিত যে গুলো এড়িয়ে চললে আপনি সঠিকভাবে এবং ডিমের পুষ্টি বজায় রেখে সহজে ডিম সিদ্ধ তৈরি করতে পারবেন।

প্রথমত আপনার ডিম যদি ফ্রিজ এ থেকে থাকে তাহলে তা বের করে সাথে সাথে সিদ্ধ করতে দেওয়া উচিত নয়। কিছুক্ষণ সময় ডিমের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রুম টেম্পারেচার এ চলে আসার জন্য অপেক্ষা করা উচিত।

দ্বিতীয়ত ডিম সেদ্ধ করার ব্যাপারে কখনোই ফুটন্ত গরম পানিতে ডিম ছাড়বেন না। বরং ঠান্ডা পানিতে ডিম ছেড়ে তারপর সেটি চুলার মাঝে দিয়ে গরম করবেন। যাতে ডিমটি পানির সাথে সাথে ঠান্ডা থাকে ধীরে ধীরে গরম হতে পারে। অনেক সময় গরম বা ফুটন্ত পানিতে হঠাৎ করে ছেড়ে দিলে ক্ষণিকের মাঝে তাপমাত্রার তারতম্যের জন্য ডিম ফেটে যেতে পারে যার মাধ্যমে আপনার ডিম সেদ্ধ করার প্রক্রিয়া ব্যাহত হতে পারে।

তৃতীয়ত ডিম সিদ্ধ করার পর ডিমের খোসা ছাড়ানো পরে প্রয়োজন পড়ে। এক্ষেত্রে খুব ছোট্ট একটি বিষয় অনুসরণ করলে আপনি খুব সহজে ডিমের খোসা ছাড়াতে পারবেন। তা হলো আপনি যখন ডিম সিদ্ধ করবেন তখন পানিতে অল্প একটু বেকিং সোডা (সোডিয়াম বাইকার্বনেট) ছেড়ে দিতে পারেন। এই বেকিং সোডা ডিম সেদ্ধ করে পানিতে মেশানো থাকলে তার ডিমের বাইরে আস্তরণকে যাতে সহজে ছাড়ানো যায় সে ব্যাপারে সহায়তা করতে পারে।

চতুর্থত অনেক সময় ডিমের খোসা ছাড়ানোর সময় আমরা দেখতে পারি ডিমের সাদা অংশ এবং ডিমের খোসার মাঝে একটি পাতলা চামড়ার মত পর্দা বিদ্যমান থাকে। অনেক সময় তাড়াহুড়া বসত আমরা এই পদ্ধতিকে রেখে দেই এবং খোসার সাথে ফেলে দিই না এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে ডিমের খোসা ছাড়ানোর সময় অবশ্যই এ পাতলা পর্দাটি খেয়াল করে উঠিয়ে ফেলতে হবে। কারণ এই পাতলা পদ্ধতি মূলত হচ্ছে ডিমের খোসার একটি অংশ এবং যা খাবারের সাথে গ্রহণ না করায় শ্রেয়।

পঞ্চমত ডিম সেদ্ধ ব্যাপারে কতক্ষণ সময় লাগতে পারে এটি বোঝার একটি সহজ উপায় আছে। তা হলো আপনি পানিতে ডিম রেখে তা চুলে ছড়িয়ে দেওয়ার পর ধীরে ধীরে পানিটি যখন ফুটতে থাকবে তার চার থেকে পাঁচ মিনিট পর আপনি তাপমাত্রা বন্ধ করে দিবেন। তারপর-

এই তিন ধরনের সময় অনুযায়ী আপনি তিন ধরনের ডিম সেদ্ধ তৈরি করতে পারবেন।