আগের পর্বগুলো তে আমরা দেশ-বিদেশে খাদ্যাভ্যাস সিরিজের লেখা হিসেবে ইউরোপে খাদ্যাভ্যাসের ব্যাপার এ কিছু তথ্য জেনেছি। এই পর্বে আমরা ইউরোপে বসবাসকারী মানুষদের বর্তমান কিছু খাদ্যাভ্যাস এবং সেগুলো কিভাবে তাদের মাঝে এসেছে এ সম্পর্কে কিছু তথ্য জানার চেষ্টা করব।

 ইবেরিয়ান নাবিকগণ ইউরোপের খাদ্যাভ্যাসের একরকম বিপ্লবই ঘটিয়েছেন বলা চলে। আর এই বিপ্লবের মূল হোতা হিসেবে কাজ করেছে নতুন বিশ্ব থেকে তাদের খুঁজে পাওয়া বেশ কিছু খাবার এর উপকরণ এবং নানা রকম খাবার এর রেসিপি। মধ্য ইউরোপের আলু থেকে পুরো ইউরোপ জুড়ে বিভিন্ন ধরনের খাবার তৈরি করা হয় এগুলোর মধ্যে রয়েছে সুইস রোস্টি, মিউনিখ এর রিবার্কনোডেল ডাম্পলিং, বুলগেরিয়ার রোডোপ পাহাড়ের পাটানিক পাই। এই খাবারগুলো যেমন অনান্য খাবারের থেকে আলাদা তেমনি এগুলোর মাঝে রয়েছে ইউরোপের ঐতিহ্যবাহী খাবারের স্বাদ এবং গুনাগুন। 

নতুন বিশ্বের নতুন সব খাদ্য উপকরণ এর মত গোল মরিচ এবং মিষ্টি টমেটোর উপকরণের তৈরি হয় সেভিল এর সতেজকারক ঠান্ডা সালাদ স্যুপ গাজপাচো। নতুন পৃথিবীর বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদের টমেটোর সহ অন্যান্য অনেক উপকরণের ওপর বেশ রূপান্তরকারী ভূমিকা রয়েছে আর এ কারণে মোজারেলা চিজ, সুগন্ধি বেসিল এবং অলিভ অয়েল দিয়ে চমৎকার সব খাবার তৈরি করা সম্ভব হয়। যেমন একটি পাউরুটির ওপর একই ধরনের উপাদান দিয়ে খাবার তৈরি করুন কিন্তু সাথে টমেটোর কিছু উপাদান মিশ্রিত করে দিয়ে হালকা করে রান্না করলে এর সংমিশ্রণে যে সুস্বাদু খাবার তৈরি হয় তা একদম মুখে লেগে থাকবে। আর এভাবেই তৈরি হয় নেপলস এর বিখ্যাত মার্গারিটা পিজ্জা যেটা সারা বিশ্বব্যাপী ইউরোপের খাদ্য এবং খাদ্যাভ্যাসকে চমৎকার করে ফুটিয়ে তুলছে।

এভাবে বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রাপ্ত এবং নিজেদের ভূমিতে উৎপন্ন উপকরণ দিয়ে ইউরোপের বিভিন্ন প্রকারের খাবার তৈরি করা হয় যেগুলো স্বাদে অনন্য এবং ইউরোপের নিজস্ব ঐতিহ্য এবং সেখানকার বৈচিত্রতা বহন করে। শুধু যে ইউরোপে ঘুরতে যাওয়া পর্যটক সেখানকার এই খাবার গুলো এবং তাদের খাদ্যাভ্যাস এর সাথে পরিচিত হয় তা নয় বরং ইউরোপের এর সকল খাবার পুরো পৃথিবী জুড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং এর মাধ্যমে ইউরোপের অতীত এবং বর্তমানের তুলে ধরেছে সারা বিশ্বের মানুষের কাছে। আর এটির জন্য প্রধান অবদান ইউরোপিয়ানদের খাদ্যাভ্যাস এবং তাদের খাবারের। 

ইউরোপের খাদ্যাভ্যাস এবং তাদের খাবারের কথা হয় তো বলে শেষ করা যাবেনা। তারপরও আমরা কিছুটা চেষ্টা করেছি আপনাদেরকে ইউরোপের বিভিন্ন খাবার এবং তাদের কিছু খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে আপনাদের জানানোর জন্য। আমাদের দেশ বিদেশে খাদ্যাভ্যাস সিরিজের যে লেখাগুলো তার বাকি পর্বগুলো আমরা চেষ্টা করব অন্য উপমহাদেশ বা মহাদেশ এবং বিভিন্ন দেশ ও জাতির জাতীয় খাদ্য এবং তাদের চমৎকার সব খাদ্যাভ্যাস নিয়ে আপনাদেরকে কিছু তথ্য জানানোর। যে তথ্যগুলো জানলে আপনি বাজে কোন পর্যটক সেই জাতি কিংবা দেশের মানুষের অতীত এবং বর্তমানের নানা তথ্য জানতে পারবেন। তাই আমাদের এই দেশ বিদেশে খাদ্যাভ্যাস সিরিজের বাকি পর্বগুলো পড়তে নজর রাখুন আমাদের ওয়েবসাইটে।