Home » দেশ-বিদেশের খাদ্যাভ্যাস

বিভিন্ন দেশে খাদ্যাভ্যাসের বৈচিত্র্য

Updated February 8, 2021

খাবার হচ্ছে এমন একটি জিনিস যা শুধু আমাদের ক্ষুধাই নিবারণ করে না সাথে এটি আমাদের নানা ধরনের ইন্দ্রিয় জাগ্রত করে দেয় এবং একই সাথে কোন একটি জায়গার সম্পর্কে একটি স্মৃতি তৈরি করে। সেই খাবার যদি সুস্বাদু হয় তবে আমাদের সেই স্মৃতি হয় চমৎকার আর খাবার যদি কোনো কারণে আমাদের আশানুরূপ না হয় তবে সে ক্ষেত্রে আমাদের সেখানকার স্মৃতি ঠিক তেমন চমৎকার হয়না। 

পৃথিবীর কোথাও না কোথাও সবসময়ই ডিনার করার সময়। কোন একটি দেশের ঘুরতে যাওয়ার পেছনে সেখানকার চমৎকার প্রাকৃতিক কিংবা কৃত্রিম সৌন্দর্য গুলো যেমন ভূমিকা রাখে তেমনি পাশাপাশি সেই দেশের বিভিন্ন রকম মজাদার খাবার কিংবা খাদ্যাভ্যাস একই রকম ভাবে ভূমিকা রাখে। রোমে গিয়ে আপনি রোমান ফোরামে ঠিক যেখানে সিজার হেঁটেছিলেন সে জায়গাগুলোতে তার পদাঙ্ক অনুসরণ করে হাঁটতে পারেন এবং একই সাথে সিস্টিন চ্যাপেল এ মাইকেলেঞ্জেলোর করা স্বর্গীয় কারুকার্য এরদিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকার মতো রোমাঞ্চকর কাজ করতে পারেন। কিন্তু তারপরও এখানকার খাদ্যাভ্যাস ও খাবারের যে মেনু তা আপনি ভুলতে পারবেন না। কোন একটি জাতি কিংবা দেশ বা মহাদেশ কতটা সুন্দর তা বোঝার কিংবা জানার জন্য চমৎকার একটি উপায় হচ্ছে তাদের খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে জানা এবং তাদের খাবারের মেনু ট্রাই করে দেখা।

কোন একটি স্থানের খাবার শুধু সে জায়গার স্মৃতিই রোমন্থন করায় না, খাবার কোন জায়গার অতীত এবং গভীর ইতিহাস সম্পর্কে তুলে ধরে। কোন একটি দেশ বা জাতির তাদের ভাষা, পোশাক এমনকি তাদের ধর্ম পরিবর্তন করার পরেও যে জিনিসটি তাদের স্বকীয়তা তুলে ধরতে সক্ষম সেটি হচ্ছে সে দেশ বা জাতির খাদ্যাভাস এবং তাদের খাবার সমূহ। বিশেষ করে তরতাজা খাবারের যে বাজার রয়েছে সেগুলো কোনো দেশ বা জাতির অতীত এবং ভবিষ্যৎ এর পরিচয় বহন করে। 

কোন দেশ বা মহাদেশে যখন কোন পর্যটক ঘুরতে যায় তখন সেখানকার এ খাবারগুলো এবং সেখানকার মানুষের যে খাদ্যাভ্যাস রয়েছে সেগুলোর সাথে সেই পর্যটকদের একটি বিশেষ এবং গভীর সম্পর্ক হয়ে যায়। কারণ কোন একটি জায়গায় গিয়ে সবকটি আশ্চর্যজনক স্থান ঘুরতে পারা না গেলেও প্রতিবেলায় সেখানকার খাদ্যাভ্যাসের সাথে মিল রেখে পর্যটক এর সেখানকার প্রচলিত খাবার খেতে হয়। এতে করে যতদিন সে জায়গায় থাকা হয় সেখানকার খাবার এর সাথে একটি পরিচিতি হওয়ার সাথে সাথে খাবার গুলোর সাথে স্মৃতি তৈরি হয়। এ কারণে কোন একটি দেশের বা জাতির অথবা কোন মহাদেশের খাবার সমূহ এবং সেখানকার মানুষের খাদ্যাভ্যাস সে জায়গার অতীত, বর্তমান সম্পর্কে জানতে যে কাউকে বেশ ভূমিকা পালন করে। 

আমাদের এই দেশ বিদেশে খাদ্যাভ্যাসের লিখার সিরিজ এ আমরা বিভিন্ন দেশ মহাদেশ কিংবা জাতির খাবার সমূহ এবং তাদের খাদ্যাভ্যাস নিয়ে লিখে যাব এবং এগুলো সম্পর্কে যে মজার মজার তথ্য গুলো আপনি জানার জন্য আগ্রহী হতে পারেন সেগুলো আমাদের এই দেশ বিদেশে খাদ্যাভ্যাস সিরিজ থেকে আপনি খুব সহজেই পড়তে পারবেন। 

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *